কলিকাতা হারবাল-এ আপনাক স্বাগতম

September 11, 2020

মূত্রনালীর সংক্রমণ: লক্ষণ, কারণ ও প্রতিকার পুরুষরা এ সমস্যায় পড়েন না তা নয়, তবে নারীদের ক্ষেত্রে ঝুঁকিটা অনেক বেশি।

আর বিশ্বব্যাপী এ সমস্যা এখন মাত্রা ছাড়িয়ে গেছে। তাই এখনই সময় সচেতন হবার। মূত্রনালীতে সংক্রমণ বা ইউরিনারি ট্র্যাক্ট ইনফেকশন (ইউটিআই) সবসময়ই অতর্কিতে হানা দেয়। অনেকেই আছেন যারা ইউটিআই-তে আক্রান্ত হলে চিকিৎসকের পরামর্শ না নিয়ে নিজেরাই বাজারচলতি কিছু ওষুধ ও জেল ব্যবহার করতে শুরু করেন। স্ত্রীরোগ বিশেষজ্ঞদের মতে, এটা করা ঠিক নয়। এতে সংক্রমণ না কমে বরং শরীরে লুকিয়ে থাকে। ওষুধ বন্ধ করার কিছুদিন পর আরও প্রবল আকারে সারা শরীরে ছড়িয়ে পড়তে পারে। তাই প্রথম থেকেই এই অসুখে সচেতন হতে হবে। মূত্রনালীর সংক্রমণ রোগের লক্ষণ রোগীর বয়স এবং লিঙ্গের উপর নির্ভর করে ভিন্ন রকম হতে পারে। তবে কিছু সাধারণ লক্ষণ আছে। যেমন: ১. ঘন ঘন প্রস্রাবের বেগ আসা, কিন্তু কোনবারই যথেষ্ট পরিমাণ প্রস্রাব হবে না। ২. প্রস্রাব করার সময় তীব্র ব্যথা এবং জ্বালাপোড়া অনুভব হবে। ৩. শরীর দুর্বল হওয়া, পিঠের নিচের দিকে বা তলপেটে প্রচন্ড ব্যথা অনুভূত হওয়া। ৪. ঘোলা ও দূর্গন্ধযুক্ত প্রস্রাব হওয়া বা কখনো কখনো প্রস্রাবের সাথে রক্ত যাওয়া। ৫. প্রস্রাবে জ্বালাপোড়া ভাবের সাথে কাঁপুনি দিয়ে জ্বর আসতে পারে।৬. প্রস্রাব আটকে রাখতে না পারা। ৭. ছোটদের ক্ষেত্রে ডায়ারিয়া, জ্বর, খেতে না চাওয়া ইত্যাদি নানা উপসর্গ দেখা যায়। এসব উপসর্গ দেখলেই চিকিৎসকের কাছে যেতে হবে।
বিস্তারিত জানতে ও যে কোন ঔষধ সংগ্রহ করতে কিংবা সরাসরি ডাক্তারের সাথে কথা বলতে ও আপনার স্বাস্থ সম্পর্কিত যে যে কোন পরামার্শ পাবার জন্য কলিকাতা হারবাল প্রস্রাবে জ্বালাপোড়া করছে? প্রস্রাবের বেগ ধরে রাখতে পারছেন না? বারবার প্রস্রাব হচ্ছে? অথবা প্রস্রাবের চাপ থাকা সত্ত্বেও ঠিকমতো হচ্ছে না? আপনি যদি একজন নারী হন, তাহলে এ ধরনের সমস্যায় শতভাগ নিশ্চিত হতে পারেন আপনি মূত্রনালীর সংক্রমণ বা ইউটিআই (UTI) এ ভুগছেন। পুরুষরা এ সমস্যায় পড়েন না তা নয়, তবে নারীদের ক্ষেত্রে ঝুঁকিটা বেশি। আর বিশ্বব্যাপী এ সমস্যা এখন মাত্রা ছাড়িয়ে গেছে। তাই এখনই সময় সচেতন হবার। মূত্রনালীতে সংক্রমণ বা ইউরিনারি ট্র্যাক্ট ইনফেকশন (ইউটিআই) সবসময়ই অতর্কিতে হানা দেয়। অনেকেই আছেন যারা ইউটিআই-তে আক্রান্ত হলে চিকিৎসকের পরামর্শ না নিয়ে নিজেরাই বাজারচলতি কিছু ওষুধ ও জেল ব্যবহার করতে শুরু করেন। স্ত্রীরোগ বিশেষজ্ঞদের মতে, এটা করা ঠিক নয়। এতে সংক্রমণ না কমে বরং শরীরে লুকিয়ে থাকে। ওষুধ বন্ধ করার কিছুদিন পর আরও প্রবল আকারে সারা শরীরে ছড়িয়ে পড়তে পারে। তাই প্রথম থেকেই এই অসুখে সচেতন হতে হবে।মূত্রনালীর সংক্রমণ রোগের লক্ষণ রোগীর বয়স এবং লিঙ্গের উপর নির্ভর করে ভিন্ন রকম হতে পারে।